সুস্থ থাকতে প্রতিদিন খান পাতিলেবু বা কাগজি লেবু

পাতিলেবু:

পাতিলেবু আকারে ছোট হলেও এর অনেক গুন। শরীরের পক্ষে খুব উপকার এই লেবু। এই লেবু তে রয়েছে এন্টিব্যাক্টেরিয়াল, এন্টিভাইরাল এবং রোগ প্রতিরোধ এর ক্ষমতা।এই লেবু ত্বকের রং ফেরাতে ও শরীরকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

সুস্থ থাকতে  পাতিলেবু:

১। সকাল বেলা খাওয়ার আগে খালিপেটে একটা পাতিলেবুর রস গরম জলে মিশিয়ে খেলে লিভারের দোষ ও পিত্তের দোষ সারে — স্বাস্থ্য ভাল থাকে ।

২। এক পেয়ালা কড়া – চায়ে একটা পাতিলেবুর রস মিশিয়ে খেলে মাথা ধরা সারে ও মন চাঙ্গা হয়ে ওঠে ।৩।

পাতিলেবুর রস বহুমূত্র রােগে উপকারী ।

৪। স্কার্ভি ও অস্থিসংক্রান্ত রােগে টাটকা লেবুর রসই মহৌষধ ।

৫। কয়েক ফোটা পাতিলেবুর রস জলে মিশিয়ে পান করলে চোখের জ্যোতি বাড়ে ।

৬। শীতকালে হাত পা – জ্বালা করলে বা ত্বক বা চামড়া ফেটে গেলে গ্লিসারিনের সঙ্গে লেবুর রস মিশিয়ে মাখলে উপকার পাওয়া যায় ।

৭। চুলকুনিতে , গায়ে সূর্যে বেশি তাপ লেগে গেলে যে কষ্ট হয় তাতে লেবুর রস বিশেষ উপকারী ।

৮।বিছে বা বিষাক্ত পােকা যে জায়গায় কামড়েছে লেবু ঘষলে সেই জায়গায় জ্বালা কমে যায় ।

৯। শরীরে কোনাে জায়গা কেটে গেলে এক টুকরাে কাপড় লেবুর রস ভিজিয়ে জড়িয়ে রাখলে রক্তপড়া বন্ধ হয় ।

১০। লেবু টক হলেও অম্লজনক নয় । অল্প পরিমাণে লেবুর রস খেলে অম্লত্ব নষ্ট হয়ে যায় এবং ক্ষারগুণ বৃদ্ধি পায় ।

পাতিলেবুর প্রয়ােগ:

১। দু চা চামচ লেবুর রস ও দু চা চামচ আদার রস মিশিয়ে তাতে একটু চিনি মিশিয়ে খেলে বদহজমজনিত সব রকমের পেট ব্যথা সারে ।

২। লেবু আর পেঁয়াজের রস ঠান্ডা জলে খেলে বদহজমের জন্যে যে পেটের অসুখ তাতে উপকার হয় — এমনকী কলেরাতেও উপকার পাওয়া যায় ।

৩ | শােওয়ার সময় গরম জলে লেবুর রস গুলে খেলে সর্দি সারে । কিছুদিন ধরে এইভাবে খেলে পুরােনাে সর্দিও সেরে যায় ।

৪। অল্প লেবুর রস মধুর সঙ্গে মিশিয়ে চেটে খেলে প্রবল কাশি সেরে যায় । হাঁপানির আক্রমণও তৎক্ষণাৎ থেমে যাওয়ায় আরাম পাওয়া যায় ।

৫। লেবুর রস আঙুলে লাগিয়ে দাঁতের মাড়িতে মালিশ করলে দাঁত থেকে রক্ত পড়া ।

৬। লেবুর রসে মধু মিশিয়ে চাটিয়ে দিলে বাচ্চাদের দুধ তােলা বন্ধ হয় ।

৭। লেবুর রসে চিনি ও জল মিশিয়ে এক মাস ধরে রাত্তিরে শােয়ার আগে খেলে বহু পুরােনাে কোষ্ঠকাঠিন্য সেরে গিয়ে শৌচশুদ্ধি হয় ।

৮। একটি পাকা পাতিলেবুর রসে অল্প মধু মিশিয়ে চাটলে শরীরের স্থূলতা কমে ও শরীরে স্ফুর্তি আসে ।

৯। পাকা পাতিলেবুর রসে সমপরিমাণ মধু দিয়ে অল্প অল্প গরম জল মিশিয়ে আহারের 1 পর সঙ্গে সঙ্গেই পান করে নিলে এক – দুমাসের মধ্যেই মেদ – বৃদ্ধি কমে যায় এবং শরীরের বেড়ে যাওয়া মেদও ঝরে যায় ।

১০।লেবুর রসে সর্ষের তেল মিশিয়ে ফুটিয়ে নিন । ঠান্ডা হলে ছেকে শিশিতে ভরে খুন । কানে দু ফোটা করে দিলে — পুঁজ পড়া , চল নি , কানের ব্যথা এমনকী বধিরতার

১১। লেবুর খােসা লেবুর রসে পিষে পুলটিস তৈরি করে গরম করে বাঁধলে বা লেবুর রস ঘষলে নানা কারণে ত্বকে যে দাগ পড়ে তা দূর হয় ।

১২। লেবু আর সর্ষের তেল সমপরিমাণে মাথায় লাগিয়ে তারপর টক দই দিয়ে ঘষে মাথা ধুয়ে ফেললে — মাথায় ছােট ছােট ফুস্কুড়ি হওয়া ও মাথার চামড়া শক্ত হয়ে যাওয়ায় ( দারুণক রােগে ) উপকার পাওয়া যাবে ।

১৩। লেবুর রস মাথায় ভাল করে ঘষে নিয়ে চুল ধুয়ে ফেললে চুলের ময়লা দূর হয় । এবং মাথার চুলকুনি সারে । চুল চকচকে আর পরিষ্কার হয় ।

১৪। এক বালতি গরম বা ঠান্ডা জলে একটি লেবু গেলে নিয়ে সেই জলে স্নান করলে চামড়া নরম ও উজ্জ্বল হয় ।

বৈজ্ঞানিক মতেঃ
  • লেবুর টক রসে আছে সাইট্রিক অ্যাসিড । লেবুর রস পেটের সব জীবাণু ধ্বংস করে । রক্ত শুদ্ধ করে । এতে আছে প্রােটিন , চর্বি , প্রাকৃতিক লবণ , শর্করা , ক্যালশিয়াম , পােট্যাশিয়াম , ফসফরাস আর লােহা ।
  • লেবুতে ভিটামিন সি বেশি মাত্রায় আছে । অতএব স্কার্ভি ও রক্তপিত্ত রােগে খুব উপকারী । দাঁত থেকে রক্ত পড়া বন্ধ করে । এতে ভিটামিন বি – ও আছে ।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Change Language