রক্তশূন্যতা ( Anaemia )কি? কারণ, লক্ষণ ও চিকিৎসা

 রক্তশূন্যতা ( Anaemia )কি? কারণ, লক্ষণ ও প্রতিকার
 রক্তশূন্যতা ( Anaemia ) :

রক্তশূন্যতা কারণ : বহুবিধ কারণে রক্তাল্পতা রােগ হয় । খাদ্য ঘাটতির জন্য – খাদ্যে আয়রন অর্থাৎ লৌহঘটিত পদার্থ , ভিটামিন- B , ও ফোলিক অ্যাসিড ইত্যাদির ঘাটতি হলে । রক্তকণিকা অস্বাভাবিক মাত্রায় ধ্বংস হতে থাকলে । Haemoglobin অর্থাৎ রক্তের রং লাল করে যে পদার্থ তার গণ্ডগােল । বিভিন্ন ইনফেকশন এবং তার জন্য অধিকবীজাণুনাশক ঔষধ ব্যবহার প্রভৃতি কারণে ।৫রক্তপাত অত্যধিক হয়ে গেলে ।মজ্জার রােগ থেকে ।

রােগ লক্ষণ :
  •  অবসাদ ।
  • মাথা ঘােরা ।
  • বুক ধড়ফড় করা ।
  • চোখে এবং ঠোটের ভিতরের অংশের সাদাটে ভাব ।
  • চামড়া ফ্যাকাসে হয়ে যাওয়া ।
  • শ্বাসকষ্ট দেখা যায় ।
  • ক্ষুধামান্দ্যভাব থাকে ।
  • মারাত্মক হলে হাত – পা সহ সারা । অঙ্গ ফুলে ওঠে । মুখমণ্ডল ফেঁসকুটে দেখায় ।
  • মহিলাদের ঋতুর গােলযােগ স্বল্পঋতু , ঋতুরােধ , লিউকোরিয়া প্রভৃতি হয় ।
  • গর্ভাবস্থায় হলে গর্ভপাত হতে পারে । প্রসবের সময়ও কষ্ট হয় ।
রক্তশূন্যতা রােগ নির্ণয় :

১।রােগ লক্ষণ দেখে ।

২। রক্তের- R.B.C.- 40 Lack / cu mm এর নিচে নেমে যায় । Haemoglobin Level-

  • পুরুষের- 14 gm / 100 ml- এর নিচে নামে ।
  • মহিলাদের -12 gm / 100 ml- এর নিচে নামে ।
রক্তশূন্যতা চিকিৎসা :

১ ) অপুষ্টিজনিত কারণে হলে দিতে হবে – Cilfer – 12 – F Liquid ( সিলফার – ১২ – এফ লিকুইড ) ১ চামচ করে দিনে ২ বার খাবার পর ।

  • অথবা Ferinova Syrup- ( ফেরিনোেভা সিরাপ ) ২ চামচ করে দিনে ২ বার খাবার পর ।
  • অথবা Globiron Syrup ( গ্লোবিরন সিরাপ ) ২-৩ চামচ করে দিনে ২ বার খাবার পর।
  • *অথবা Livogen Syrup ( লিভভাজেন সিরাপ ) ২-৩ চামচ করে দিনে ২ বার খাবার পর ।
  • অথবা Ferrochelate Syrup ( ফেরােচিলেট সিরাপ ) ১ চামচ করে দিনে ১ বার খাবার পর ।
  • অথবা Fesovit Elixer ( ফেসােভিট এলিক্সার ) ১ চামচ করে দিনে ২ বার খাবার পর ।
  • *অথবা . Neo – ferilex Liquid ( নিও – ফেরিলেক্স – লিকুইড ) ২-৩ চামচ করে দিনে ২ বার খাবার পর ।
  • অথবা Rubraton Elixer ( রুবরাটন এলিক্সার ) ২ চামচ করে দিনে ২ বার খাবার পর ।
  • অথবা Tonoferon Syrup ( টোনােফেরনসিরাপ ) ১-১২ চামচ করে দিনে ২ বার খাবার পর ।

২।হিমােগ্লোবিনের লেভেল খুব কমে গেলে দিতে হবে – Dexorange – Plus Syrup ( ডেক্সোরেঞ্জ প্লাস সিরাপ ) ৩ চামচ করে দিনে ২ বার খাবার পর ।

  • অথবা Globac Liquid ( গ্লোব্যাক লিকুইড ) ৩ চামচ করে দিনে ২ বার খাবার আগে ।
  • অথবা Heam – up Syrup ( হেম – আপ – সিরাপ ) ৩ চামচ করে দিনে ২ বার খাবার আগে ।
  • *অথবা Hemfer Liquid ( হেমফার লিকুইড ) ৩ চামচ । করে দিনে ২ বার খাবার পর ।
  • অথবা Hepp – fote Syrup ( হেপ ফোর্ট সিরাপ ) ৩ চামচ করে দিনে ২ বার খাবার পর ।
  • অথবা Blosyn Liquid ( ব্রোসিন লিকুইড ) ৩ চামচ করে দিনে ২ বার খাবার পর ।

৩। বেশি রক্তপাত হলে Blood transfusion করতে হবে  তারপর নিচের ইঞ্জেকশন দেওয়া ভাল –

Inj . Vitcofol ( ইঞ্জেকশন ভিটকোফল ) ২ মিলি করে প্রত্যহ ১ বার পেশীতে দিতে হয় ।

  • অথবা Inj . Jectofer – plus ( ইঞ্জেকশন জেকটোফার প্লাস ) ১ টি করে অ্যাম্পুল প্রত্যহ পেশিতে দিতে হয় । ( গ্লুটিয়াল পেশীতে দিতে হবে । )
  • অথবা Inj.Imferon – F12 ( ইঞ্জেকশন ইমফেরন -এফ ১২ ) ১ টি করে অ্যাম্পুল প্রত্যহ অথবা ১ দিন অন্তর গ্রুটিয়াল পেশীতে দিতে হয় ।
  • *অথবা Inj . Eldervit – 12 ( ইঞ্জেকশন এলডারভিট -১২ ) ১ টি করে ডােজ ১ দিন বা দিন অন্তর গ্রুটিয়াল পেশিতে দিতে হবে ।

৪। রক্তের সকল প্রকার কণিকার পরিমাণ অস্বাভাবিকভাবে কমে গেলে দিতে হবে –

Inj . Decaneurabol – 25 mg ( ইঞ্জেকশন ডেকানিউরাবল -২৫ মিগ্রা ) ১ টি করে অ্যাম্পুল প্রতি তিন সপ্তাহে ১ বার করে পেশিতে দিতে হয় ।

  • অথবা Inj . Metadec – 25 mg ( ইঞ্জেকশন মেটাডেক -২৫ মিগ্রা ) ১ টি অ্যাম্পুল প্রতি তিন সপ্তাহে ১ বার করে পেশিতে দিতে হয় ।
  • অথবা Inj . Grothic – 25 mg ( ইঞ্জেকশন গ্রোথিক -২৫ মিগ্রা ) ১ টি করে অ্যাম্পুল প্রতি সপ্তাহে ১ বার । তার সাথে দিতে হবে Tab Wysolone – l0 mg ( ট্যাবওয়াইসলােন -১০ মিগ্রা )
  • *অথবা Tab Betnosol forte ( ট্যাব বেটনিসল ফোর্ট ) ১ টি করে দিনে ৪ বার -১ সপ্তাহ পরে ১ টি করে দিনে ৩ বার -১ সপ্তাহ পরে ১ টি করে দিনে ২ বার -১ সপ্তাহ পরে ১ টি করে দিনে ১ বার -১ সপ্তাহ ।
রক্তশূন্যতা আনুষঙ্গিক ব্যবস্থা :

১।কাচকলা , ডুমুর , কুলেখাড়া সহসবুজ শাকসবজি , ডিম , দুধ , জলসহ ছানা , টম্যাটো , লেবু , মাছ , মাংস প্রভৃতি প্রচুর পরিমাণে খাওয়া ভাল ।

২।Chloramphenicol জাতীয় ঔষধ মােটেই খাওয়া চলবে না ।

2 thoughts on “ রক্তশূন্যতা ( Anaemia )কি? কারণ, লক্ষণ ও চিকিৎসা”

  1. I drew a penis with a glue stick on the whiteboard: My whole class once got detention because I drew a penis with a glue stick on the whiteboard and when the teacher went to wipe off the board all the fluff came off and stuck to the glue. I never got in trouble for it because my whole class found it too funny to tell the teacher it was me.

  2. Amsterdam Private Jet Charter – more information on our website skyrevery.com
    Private jet rental at SkyRevery allows you to use such valuable resource as time most efficiently.
    You are the one who decides where and when your private jet will fly. It is possible to organize and perform a flight between any two civil airports worldwide round the clock. In airports, private jet passengers use special VIP terminals where airport formalities are minimized, and all handling is really fast – you come just 30 minutes before the estimated time of the departure of the rented private jet.
    When you need private jet charter now, we can organise your flight with departure in 3 hours from confirmation.

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Change Language